ঢাকা সোমবার, ১৬ই সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২রা আশ্বিন ১৪২৬


১২০ কোটি টাকার ব্রীজ র্নিমাণের আগেই ভেঙে পড়ল।ক্ষতির পরিমাণ পঞ্চাশ লক্ষ ।


৫ আগস্ট ২০১৯ ১১:৪৮

আপডেট:
১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০৬:৩৬

১২০ কোটি টাকার ব্রীজ র্নিমাণের আগেই ভেঙে পড়ল।ক্ষতির পরিমাণ পঞ্চাশ লক্ষ ।

 

এস.এম.আবিদ হাসান,ঝিনাইদহ।

 

 ঝিনাইদহ সড়ক ও জনপথ বিভাগের একটি সুত্র জানায় জাইকার অর্থায়নে মনিকা লিমিটেড পিডাব্লিউ ০৩ প্যাকেজের আওতায় ব্রীজটি নির্মান করছে। দেড় বছর ধরে পাইলিং ও মাটি ভরাটের কাছ শেষে এখন ব্রীজের দুই পাশে গার্ডার দেওয়ার কাজ চলছিল। কোম্পানীর ম্যাসেঞ্জার ওলিউর রহমান জুয়েল জানান, জগ দিয়ে ঝিনাইদহ শহরের ধোপাঘাটা এলাকায় সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীন ১২০ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত ব্রীজের দুইটি বৃহৎ আকারের গার্ডার (বেষ্টক) ভেঙ্গে পড়েছে। এতে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে ২০ জন শ্রমিক। রোববার দুপুরে এই ঘটনা ঘটে। ব্রীজে গার্ডার ভেঙ্গে পড়ার সময় বিকট শব্দে এলাকা কেঁপে ওঠে।

গার্ডার স্থানান্তরিত করার সময় অসাবধান বশত প্রায় একশ ফুট দৈর্ঘ্য গার্ডার দুইটি নিচে পড়ে ভেঙ্গে গেছে। শ্রমিকরা এ সময় খাবার গ্রহন করায় বড় ধরণের কোন ক্ষতি হয়নি। তবে এতে প্রায় ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে।

 

 অভিযোগ উঠেছে, কাজে ত্রুটি থাকার কারণে এই দুর্ঘনা ঘটেছে। পরিদর্শন করে দেখা গেছে, ব্রীজের কাজে ব্যাবহৃত পাইপ ও সার্টারগুলো দীর্ঘ দিনের পুরানো ও মরিচা ধরা। প্রায় দেড়শ টন ওজনের দুইটি গার্ডারের ভর সইতে না পারায় গার্ডার দুইটি পড়ে গেছে। বিষয়টি নিয়ে প্রজেক্ট ম্যানেজার আব্দুস সালাম গনমাধ্যম কর্মীদের সাথে কথা বলতে রাজি হননি। তবে সাইট ইঞ্জিনিয়ার শাহাদত হোসেন জানান, বিষয়টি জেনে বুঝে বলা যাবে। তবে নিশ্চয় কাজে কোন ত্রুটি ছিল। কথা হলে ঝিনাইদহ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নজরুল ইসলাম জানান, আমরা এ কাজের দেখভাল করছি না। ঢাকা থেকে একটি প্রজেক্টের মাধ্যমে কাজটি হচ্ছে। এই প্রজেক্টের একটি অফিস যশোরে আছে। তাদের সাথে কথা বলুন। আমরা ব্রীজ নির্মানের কোন খোজই রাখি না বলে নির্বাহী প্রকৌলী নজরুল ইসলাম জানান।


বিষয়: bridge jhenaidah


Top