ঢাকা শনিবার, ১৯শে অক্টোবর ২০১৯, ৪ঠা কার্তিক ১৪২৬


ডিএনসিসি’র নাম ও লোগো ব্যবহার করে ‘ঢাকা চাকা’র প্রতারণা


৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ১০:১৮

আপডেট:
১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ০৪:০৭

রাজধানীর গুলশান এলাকার কূটনৈতিক পাড়ায় পরিবহন সেবা দিচ্ছে বেসরকারি ঢাকা চাকা সার্ভিস। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) অনুমতি না নিয়ে সংস্থাটির নাম ও লোগো ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি ঢাকা চাকা সার্ভিস কর্তৃপক্ষকে কারণ দর্শানোর নোটিশও দিয়েছে ডিএনসিসি।

জানা গেছে, ডিএনসিসি কর্তৃপক্ষের চোখ ফাঁকি দিয়ে প্রায় ৩ বছর ধরে এই প্রতারণা করে আসছে প্রতিষ্ঠানটি। ২০১৬ সালের ১ জুলাই হলি আর্টিজানে হামলার পর গুলশান-বারিধারা-বনানী-নিকেতন এলাকায় চলাচলকারী সব গণপরিবহন বন্ধ করে দেওয়া হয়। সেই থেকে গুলশান-বনানী-বারিধারা সার্কেলের ভেতর বিশেষ বাস সার্ভিস চালুর উদ্যোগ নেন প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক। মেয়রের এই উদ্যোগকে সুযোগ হিসেবে গ্রহণ করে ঢাকা চাকা লিমিটেড। তৎকালীন মেয়রকে বুঝিয়ে ২০১৬ সালের ১০ আগস্ট ঢাকা চাকার ব্যানারে শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত সার্কুলার বাস সার্ভিস নামানো হয় কূটনৈতিক পাড়ায়।  প্রথমে ১০টি বাস দিয়ে পুরো এলাকার এই সার্ভিস চলতো। পরে চাহিদা থাকায় কয়েক দফায় বাসের সংখ্যা বাড়ানো হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/07/1549505182424.jpg

আরো জানা গেছে, প্রতিটি বাসের গায়ে লেখা রয়েছে ‘তত্ত্ববধানে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন’। ফলে সবাই মনে করেন এসব বাসের মালিক ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন। কাজেই সেবাদানকারী ওই প্রতিষ্ঠানের যেকোন আলোচনা-সমালোচনা ডিএনসিসি’কে ঘিরেই হওয়ার কথা। যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে বছরের পর বছর ব্যবসা করছে প্রতিষ্ঠানটি। অথচ ভাড়া বা সার্ভিসের বিষয়ে কিছুই জানে না ডিএনসিসি’র সংশ্লিষ্ট বিভাগ। সম্প্রতি বিষয়টি ডিএনসিসি’র নজরে আসে।  গত ১৭ জানুয়ারি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নাম ও লোগো ব্যবহারের যথাযথ অনুমোদন আছে কি না- তা ৩ কার্যদিবসের মধ্যে জানাতে নোটিশ দেয় ডিএনসিসি কর্তৃপক্ষ।  তবে তিন কার্যদিবস শেষ হলেও কোনো জবাব দেয়নি পরিবহন কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে ঢাকা চাকা লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. মন্টু মিয়া মোবাইলে বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘আসলে তখন তড়িঘড়ি করে সার্ভিসটি নামানো হয়। প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের মৌখিক নির্দেশেই বাসটিতে ডিএনসিসি’র নাম ব্যবহার করা হয়। তবে এ বিষয়ে লিখিত কোনো দলিল আমাদের কাছে নেই। ডিএনসিসি যদি না চায় তাহলে নাম ও লোগো সরিয়ে ফেলা হবে। আর প্রতিষ্ঠানের মালিক বিদেশ থেকে ফিরলেই চিঠির জবাব দেওয়া হবে।’

ডিএনসিসি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক (পরিবহন) আব্দুল লতিফ খান মোবাইলে বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর বিষয়টি নজরে আসে। আসলে পরিবহন প্রতিষ্ঠানটি যখন কোনো অনিয়ম করে বা যাত্রীদের হয়রানি করে তখন সেটার দায় ডিএনসিসি’র ওপর চলে আসে। যেহেতু আমরা এর সঙ্গে কোনোভাবেই জড়িত নই, তাই তাদের কাছে লিখিত জবাব চেয়েছি। যদি দেখি তাদের কাছে লিখিত কোনো ডকুমেন্ট নেই তাহলে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা নেব।’

যাত্রীদের অভিযোগ, সার্ভিসটি চালু হওয়ার পর থেকে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়। মামুন নামের এক যাত্রী জানান, গুলশান-২ থেকে শুটিং ক্লাব আসতে আগে ৫ টাকা ভাড়া নেওয়া হতো। কিন্তু এখন ২০ টাকা ভাড়া নেওয়া হয়।



Top